বিশেষ খবর

শিক্ষার প্রসারে ও নির্মাণ শিল্পে নিবেদিত প্রাসাদ গ্রুপের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী

ক্যাম্পাস ডেস্ক সংবাদ
img

সম্প্রতি ঢাকা মহানগরীর বনানীর কামাল আতাতুর্ক এভিনিউতে প্রাসাদ গ্রুপ অব কোম্পানিজ এর নবনির্মিত কর্পোরেট অফিস ভবনের সম্মেলন কক্ষে ২১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন প্রাসাদ গ্রুপ অব কোম্পানিজ এর চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আবু ইউসুফ মোঃ আব্দুল্লাহ।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কোম্পানির সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যান মিসেস দোলেনা খানম, জনাব আনছার আলী, মিসেস জিনিয়া সুলতানা, নর্দান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ এর ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য প্রফেসর ড. এ ডব্লিউ এম আব্দুল হক, উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. আনোয়ারুল করীম, ট্রেজারার মোঃ আনোয়ার হোসাইন, নর্দান ইন্টারন্যাশনাল মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মোঃ আনোয়ার হোসেন, জেক্সকার প্রেসিডেন্ট ও ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার জনাব শেখ মারুফ হাসান প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের তিন কৃতী ক্রিকেটার সৌম্য সরকার, মোস্তাফিজুর রহমান ও রবিউল ইসলামকে সংবর্ধনা দেয়া হয়। প্রাসাদ গ্রুপ অব কোম্পানিজ এর ২১ বছরের পথচলার পেছনে যে ব্যক্তির নিরলস অক্লান্ত পরিশ্রম ও মেধা জড়িত, তিনি হলেন প্রফেসর ড. আবু ইউসুফ মোঃ আব্দুল্লাহ। যিনি দক্ষিণাঞ্চলের সুন্দরবনের তীর ঘেঁষা ছোট একটি জেলা সাতক্ষীরায় জন্মগ্রহণ করেন। শিক্ষাজীবন যার শুরু সাতক্ষীরায় Primary Training Institute (PTI) School থেকে। যেখানে তিনি অত্যন্ত মেধার সাথে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করেন এবং প্রতি ক্লাসেই প্রথম স্থান অর্জনের পাশাপাশি টেলেন্টপুল বৃত্তি লাভ করেন।
১৮৪২ সালে প্রতিষ্ঠিত দক্ষিণবঙ্গের সবচেয়ে পুরানো এবং বিখ্যাত Pranonath Multilateral High School (PN) School এ তিনি মাধ্যমিক শিক্ষা শুরু করেন। সে স্কুলে পড়ালেখা করেছেন উপমহাদেশের স্বনামধন্য ব্যক্তিত্ব আজিজুন্নেসা খাতুন, ওস্তাদ শেখ মোহাম্মদ কাওসার আলী, এম আর খাঁন, সিকান্দার আবু জাফর প্রমুখ।
আবু ইউসুফ মোঃ আব্দুল্লাহ ক্যাডেট কলেজে ভর্তি পরীক্ষায় মেধা তালিকায় ২য় স্থান অর্জন করে ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজে সপ্তম শ্র্রেণিতে ভর্তি হন। ক্লাস ক্যাপ্টেন হিসেবে দায়িত্ব পালন, Sportsman হিসেবে Best পুরস্কার অর্জন ইত্যাদি কারণে তিনি অলরাউন্ডার Cadet হিসেবে সুপরিচিত হন। তিনি এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় বোর্ডে স্ট্যান্ড করে কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখেন।
এরপর তিনি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ল্য কমিশনে যোগদান করেন। এখানেও তিনি বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রোগ্রামে কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখেন। বৃহত্তর পরিমন্ডলে থাকার আগ্রহ থেকে তিনি সেনাবাহিনী ছেড়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে Applied Chemistry & Chemical Engineering এ ভর্তি হন। এরপরে Dhaka বিশ্ববিদ্যালয়ের IBA থেকে MBA ডিগ্রি অর্জন করেন। উচ্চতর শিক্ষার আগ্রহ থেকে তিনি ইউরোপের ১ম সারির বিশ্ববিদ্যালয় ‘‘হেলসিংকি স্কুল অব ইকোনোমিক্স” ফিনল্যান্ড থেকে International Business G Scholarship নিয়ে উচ্চতর শিক্ষা গ্রহণ করেন। বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং এ শীর্ষ দশ বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম University of Texus & Austin G Scholarship নিয়ে Post Graduate Degree কৃতিত্বের সাথে সম্পন্ন করেন। এরপর London এর Bredford University তে PhD enrollment করেন।
অল্প সময়ের জন্য ১৯৯৩ সালে দেশে এসে নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য এবং তদানীন্তন IBAT এর পরিচালক প্রফেসর ড. সামসুল হকের অনুপ্রেরণায় তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের IBA তে শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন এবং দেশে থাকার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। শিক্ষকতার পাশাপাশি Multitalented Speed থাকার কারণে তিনি Academic Sector এর সাথে Business House এ পদার্পণ করেন। ১৯৯৪ সালে Finland এর একটি Business House এর সাথে গার্মেন্টস এক্সপোর্ট করার চুক্তি করেন এবং এনার্জি ডেভেলপমেন্ট নামে একটি কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন। যার মাধ্যমে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে Winter Clothing Export করে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে প্রবেশ করেন। Sundarban Scientific Shrimp Culture Ltd প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে Shrimp cultivation এ তিনি ব্যাপক অবদান রাখেন এবং দেশের জন্য বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের পথ উন্মুক্ত করে দেন।
বাল্যকাল থেকে Drawing, Designing, বিশেষ করে Building Design এর দুর্নিবার আকর্ষণ থেকে তিনি Real Estate জগতে প্রবেশ করে Praasad Nirman Ltd. প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে ঢাকা ও চট্টগ্রামে ব্যতিক্রমধর্মী ভবন নির্মাণে ব্যাপক পরিচিতি অর্জন করেন। বাংলাদেশের ট্যুরিজম ক্ষেত্রে এর অপার সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচন করতে তিনি ২০০১ সালে Praasad Nirman Ltd. প্রতিষ্ঠা করেন এবং কক্সবাজার ও সেন্টমার্টিনে বিলাসবহুল হোটেল ও রিসোর্ট নির্মাণ এবং সমুদ্র ভবনের জন্য বিলাস বহুল জাহাজ ও ইয়ট এর মাধ্যমে ট্যুরিজম ব্যবসার এক নতুন দিক উন্মোচন করেন।
IBA তে এই তরুণ শিক্ষক তাঁর শিক্ষকতার পাশাপাশি অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে নিজের দক্ষতা প্রমাণ করে মাত্র ৪৩ বছর বয়সে প্রফেসর পদে পদোন্নতি পান। শিক্ষকতার সাথে সাথে Labour productivity এর ওপর তিনি PhD করেন। শিক্ষকতার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের ওপর মেধার স্বাক্ষর রেখে তিনি ২টি বই লিখেছেন। যার একটি “Bangladesh Garments Industry Productivity & Competitireness” এবং অন্যটি South Asian Hope SAARC will it Survive? এছাড়াও তার ২০টির অধিক Research Article প্রকাশিত হয়েছে।
এরপর তিনি মালয়েশিয়ার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে Myanmer: Bridging Asian & SAARC এর ওপর Post Doctorate করেন। যা অত্যন্ত তথ্যবহুল হওয়ার কারণে University এটিকে পাঠ্য বই হিসেবে প্রকাশ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রায় ৫ বছর হতে চলল প্রফেসর আবদুল্লাহ NUB Trust এর চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. সামসুল হকের অনুপ্রেরণায় প্রফেসর আব্দুল্লাহ ২০১১ সালে নর্দান ট্রাস্টের ৫টি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করে আজ পর্যন্ত তা পরিচালনা করে আসছেন। প্রতিষ্ঠানগুলোর সফলতাই এখন তার মূল লক্ষ্য। অবশেষে ২০ বছর শিক্ষকতা ও ব্যবসা-বাণিজ্যে অক্লান্ত পরিশ্রম করে একজন তরুণ, উদীয়মান, উচ্চশিক্ষিত, Successful Entrepreneur এর উজ্জ্বল প্রতিচ্ছবি হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হন। প্রাসাদ গ্রুপের ২১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে গ্রুপের চেয়ারম্যানকে বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান এবং প্রতিষ্ঠানের উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করে বক্তৃতা প্রদান করেন। নিম্নে কয়েকজন বক্তার উল্লেখযোগ্য অংশ উপস্থাপন করা হলো।

ড. মসিউর রহমান
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান দেশের আবাসন শিল্প এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নে প্রাসাদ গ্রুপের অসামান্য অবদানের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি বলেন, দেশের উন্নয়নে জ্ঞান প্রয়োগ ও জ্ঞান চর্চার গুরুত্ব অপরিসীম। এক্ষেত্রে প্রাসাদ গ্রুপ তাদের অর্থনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনার পাশাপাশি দেশের শিক্ষা বিস্তারে যে ভূমিকা রাখছে, তা প্রতিটি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের জন্য অনুকরণীয় হতে পারে।

শেখ মারুফ হাসান
ডিএমপি’র এডিশনাল কমিশনার শেখ মারুফ হাসান বলেন প্রাসাদ গ্রুপের ২১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে আমি প্রাসাদ পরিবারের সদস্যদেরকে আমার পক্ষ থেকে এবং ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে আন্তরিক অভিনন্দন জানাচ্ছি। প্রাসাদ পরিবারের এ আনন্দের দিনে অংশ নিতে পেরে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করছি। প্রাসাদ পরিবারের কর্ণধার আবু ইউসুফ মোঃ আব্দুল্লাহকে ছোটবেলা থেকে জানি, এক সাথে বড় হয়েছি। তিনি ছিলেন অলরাউন্ডার। আজকে তার অবস্থান ও অগ্রগতি দেখে আমরা গৌরববোধ করি। মুক্তিযুদ্ধ এবং বিশাল আত্মত্যাগের মধ্য দিয়ে এ দেশ স্বাধীন হয়েছে। আমরা যদি আবু ইউসুফ মোঃ আব্দুল্লাহর মতো যার যে অবস্থান থেকে এ দেশকে সোনার বাংলায় রূপান্তরের চেষ্টা করি, তাহলে দেশ ও জাতি কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে এগিয়ে যাবে।

প্রফেসর আবু ইউসুফ মোঃ আবদুল্লাহ
প্রাসাদ গ্রুপের চেয়ারম্যান প্রফেসর আবু ইউসুফ মোঃ আব্দুল্লাহ বলেন, আজকের অনুষ্ঠানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা মসিউর রহমান, নর্দান ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ এর ভাইস-চ্যান্সেলর, প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর, সাবেক ভাইস-চ্যান্সেলর, নর্দান মেডিকেল কলেজের প্রিন্সিপাল, নর্দান কলেজের প্রিন্সিপালসহ জ্ঞানী-গুণীজন যোগ দিয়েছেন। আমি সবাইকে ধন্যবাদ জানাই।
প্রাসাদ গ্রুপের সদস্যসহ অনেক প্রথিতযশা ব্যক্তি এ অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে আমাদেরকে উৎসাহিত-উজ্জীবিত করেছেন, এজন্য তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। প্রফেসর মোঃ আব্দুল্লাহ বলেন যাদের স্নেহ-মমতা-আশীর্বাদ নিয়ে আমি বড় হয়েছি, জীবনে এতদূর এসেছি সেই পরম শ্রদ্ধাভাজন মা-বাবাকে আমি এখনও কাছে পাচ্ছি। এজন্য আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের কাছে শুকরিয়া। তাঁরা আমার কর্মপ্রেরণা। আমার মা-বাবার জন্য দোয়া করবেন, আমার জন্যেও দোয়া করবেন, যাতে আমি আজীবন তাঁদের সেবা করতে পারি।
প্রফেসর মোঃ আব্দুল্লাহ উপস্থিত শিক্ষকমন্ডলী ও শিক্ষা প্রশাসকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ছাত্রদের মেধাবিকাশে আমরা সচেতন ও আন্তরিক হতে পারলে আমাদের সকল পরিশ্রম সার্থক হবে। আমাদের শিক্ষাঙ্গন থেকে মানবিক গুণাবলি সম্পন্ন গ্রাজুয়েট বের করতে পারলে তারা কর্মক্ষেত্রে অবশ্যই বিশেষ সাফল্যের স্বাক্ষর রাখতে পারবে; আর সেটিই হবে আমাদের জন্য আনন্দের ও গৌরবের। আমাদের সবাইকে আন্তরিকভাবে সে চেষ্টাই করতে হবে।


আরো সংবাদ

শিশু ক্যাম্পাস

বিশেষ সংখ্যা

img img img

আর্কাইভ