বিশেষ খবর

ইন্টারভিউ প্রস্তুতি: ১০ জরুরি বিষয়

ক্যাম্পাস ডেস্ক ক্যারিয়ার গাইড
img

আমাদের দেশে চাকরির বাজার দিন দিন একদিকে যেমন হয়ে উঠছে প্রতিযোগিতাপূর্ণ, অন্যদিকে হয়ে উঠছে চ্যালেঞ্জিং। তাই চাকরিপ্রত্যাশীদের এ ভিড়ে চাকরি পাবার অন্যতম পূর্বশর্ত হলো একটি সফল ইন্টারভিউ। তবে প্রতিযোগিতার যুগে ইন্টারভিউ বোর্ডে সফলভাবে উত্তরণের জন্য প্রয়োজন কিছু পূর্বপ্রস্তুতির। চলুন জেনে নেই ইন্টারভিউয়ের পূর্বপ্রস্তুতির এমন ১০টি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, যা একজন চাকরিপ্রার্থীকে ইন্টারভিউয়ের জন্য যথাযথভাবে প্রস্তুত হতে সাহায্য করবে।
১. প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে জানুনঃ আপনি যে প্রতিষ্ঠানে ইন্টারভিউ দিতে যাচ্ছেন সেই প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে বিস্তারিত খোঁজ-খবর নিন। কোম্পানির ধরণ, প্রতিষ্ঠাকাল, বর্তমান অবস্থা, পণ্য বা সেবার ধরণ, বাজারমূল্য, পণ্য বা সেবার বাজার চাহিদা, ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা, কর্মরত ব্যক্তির সংখ্যা এবং তাদের সম্ভাব্য মাসিক আয়, কর্মক্ষেত্রের পরিবেশ ইত্যাদি সম্পর্কে ধারণা নিন। প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইট, লিঙ্কডইন প্রোফাইল, প্রেস রিলিজ অথবা ইন্টারনেটের ওপেন সোর্স থেকে আপনি এই তথ্যগুলো সংগ্রহ করতে পারেন। প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানা থাকলে ইন্টারভিউয়ের সময় অনেক প্রশ্নের যথাযথ তথ্য সম্বলিত উত্তর দিতে পারবেন।
২. সাক্ষাৎকার গ্রহণকারী সম্পর্কে জানুনঃ ইন্টারভিউয়ের পূর্বে চেষ্টা করুন যারা সাক্ষাৎকার নিবেন তাদের সম্পর্কে জানার। সাক্ষাৎকার গ্রহণকারী ব্যক্তির ব্যক্তিগত তথ্য, পছন্দ-অপছন্দ, ব্যক্তিত্ব, ক্যারিয়ার ইতিহাস ইত্যাদি জানা থাকলে ইন্টারভিউয়ের সময় তিনি আপনাকে কি ধরণের প্রশ্ন করতে পারেন সে সম্পর্কে অনুমান করতে পারবেন। সেই সাথে তিনি কি ধরণের উত্তর পছন্দ করবেন সেটিও বুঝতে পারবেন। সাধারণত প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইট অথবা ঐ ব্যক্তির সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রোফাইল থেকে এসব তথ্য সংগ্রহ করা যায়।
৩. সম্ভাব্য প্রশ্ন সম্পর্কে ধারণা নিনঃ ইন্টারভিউ বোর্ডে কি ধরণের প্রশ্ন করতে পারে তার একটি সম্ভাব্য তালিকা করা ইন্টারভিউ পূর্ব প্রস্তুতির একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। ইন্টারভিউ বোর্ডে সাধারণত কিছু প্রচলিত প্রশ্ন (যেমন নিজের সম্পর্কে, পূর্বের চাকরি কিংবা পড়ালেখা সম্পর্কে, কোন শখ বা পছন্দের বিনোদন মাধ্যম সম্পর্কে কিংবা ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে প্রশ্ন করা) ছাড়াও চাকরির ধরণ, প্রতিষ্ঠানের ধরণ, কর্মক্ষেত্র ইত্যাদি বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়। এসব সম্ভাব্য প্রশ্নের একটি তালিকা করে প্রশ্নগুলোর যথাযথ উত্তর ইন্টারভিউয়ের পূর্বেই তৈরি করে নিলে ইন্টারভিউয়ের সময় অনেক সাবলীল এবং নিখুঁতভাবে উত্তর দেওয়া যায়।
৪. একটি নমুনা ইন্টারভিউ অনুশীলন করুনঃ চূড়ান্ত ইন্টারভিউ বোর্ডের মুখোমুখি হওয়ার আগে নিজের বন্ধুবান্ধব কিংবা পরিবারের সদস্যদের সহযোগিতায় একটি অনুশীলনমূলক ইন্টারভিউয়ের আয়োজন করা যেতে পারে। এতে সাক্ষাৎকারকারী একদিকে যেমন নিজের জড়তা কাটিয়ে আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠতে পারবেন অন্যদিকে নিজের ভুলগুলোকেও শুধরে নেওয়ার সুযোগ পাবেন।
৫. চাকরির পদের সাথে নিজের যোগ্যতা এবং দক্ষতার তুলনা করুনঃ চাকরির পদটির সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করে তার সাথে নিজের যোগ্যতা এবং দক্ষতার তুলনা করে দেখতে পারেন। এর মাধ্যমে আপনি পদটিতে কাজ করার জন্য কতটুকু প্রস্তুত সে সম্পর্কে ধারণা পাবেন। একইসাথে ইন্টারভিউ বোর্ডে আপনি যে পদটির জন্য যোগ্য সেটি সহজেই আত্মবিশ্বাসের সাথে প্রমাণ করতে পারবেন।
৬. চাকরি প্রত্যাশী প্রতিষ্ঠানের কোন পণ্য বা সেবা গ্রহণ করুনঃ সম্ভব হলে প্রত্যাশিত প্রতিষ্ঠানটির কোন পণ্য বা সেবা গ্রহণ করুন। আপনি যে পদের জন্যই আবেদন করুন না কেন, প্রতিষ্ঠানটির পণ্য বা সেবা সম্পর্কে আপনার ধারণা আছে কিনা সেটি যাচাই করতে আপনাকে ইন্টারভিউ বোর্ডে প্রতিষ্ঠানটির পণ্য কিংবা সেবা সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হতে পারে। একই সাথে প্রতিষ্ঠানটির পণ্য বা সেবা সম্পর্কে জানা থাকলে প্রতিষ্ঠান সম্পর্কিত যেকোনো প্রশ্নের উত্তর দেওয়া আপনার জন্য অনেক সহজ হয়ে যাবে।
৭. নিজের ফেসবুক এবং অন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের আইডিগুলো পর্যবেক্ষণ করুনঃ সাম্প্রতিককালে প্রতিষ্ঠান কর্তৃক চাকরিপ্রত্যাশীদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের আইডি পর্যবেক্ষণ করে দেখা অবাক করার মতো কোন ঘটনা নয়। সাধারণত একজন ব্যক্তির ব্যক্তিত্ব যাচাই করতে তার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের আইডিগুলো পর্যবেক্ষণ করা হয়। তাই ইন্টারভিউয়ের পূর্বে নিজের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রোফাইলগুলো পর্যবেক্ষণ করে যেতে পারেন যাতে সেই সম্পর্কে কোন প্রশ্ন করা হলে তার যথাযথ উত্তর দিতে পারেন।
৮. যথাযথ পোশাক পরিধান করুনঃ ইন্টারভিউয়ের সময় যথাযথ পোশাক এবং মার্জিত চেহারা বজায় রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনার ব্যক্তিত্ব ফুটে উঠতে পারে আপনার পোশাক পরিচ্ছদ এবং অঙ্গভঙ্গির মাধ্যমে। তাই ইন্টারভিউ শুরুতেই সাক্ষাৎকার গ্রহণকারীদের নজর কাড়তে যথাযথ পোশাক পরিধান করা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।
৯. প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সঙ্গে রাখুনঃ ইন্টারভিউ বোর্ডে যাওয়ার পূর্বে অবশ্যই প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সঙ্গে রাখুন। পূর্বেই জেনে নিন কি কি কাগজপত্র সাথে নিতে বলা হয়েছে। প্রয়োজনে কাগজপত্র গুলোর ফটোকপি করিয়ে রাখুন। যদি কাগজপত্রের ক্ষেত্রে কোন পূর্ব নির্দেশনা না দেওয়া থাকে তাহলে কিছু সাধারণ কাগজপত্র যেমন- সকল ধরণের সার্টিফিকেট, পূর্ব কর্মের নমুনা, ছবি, সিভি ইত্যাদি সঙ্গে রাখুন।
১০. যথাসময়ে আত্মবিশ্বাসের সাথে উপস্থিত হনঃ ইন্টারভিউ বোর্ডে যথাসময়ে উপস্থিত হওয়া একটি অতি জরুরী বিষয়। আপনার সময়নিষ্ঠতার একটি উদাহরণ হতে পারে ইন্টারভিউ বোর্ডে আপনার যথাসময়ে উপস্থিতি। হাতে কিছু বাড়তি সময় নিয়ে আপনার যাত্রা শুরু করুন। মনে রাখবেন যথাসময়ে আত্মবিশ্বাসের সাথে উপস্থিতি আপনাকে পুরো ইন্টারভিউ জুড়ে প্রাণবন্ত এবং দৃঢ় থাকতে সাহায্য করবে।


আরো সংবাদ

শিশু ক্যাম্পাস

বিশেষ সংখ্যা

img img img

আর্কাইভ