ক্যাম্পাস পরিচালিত ফ্রি সেমিনার অন প্রোএকটিভ এন্ড পজিটিভ এটিচিউড

How to create positive thought

ক্যাম্পাস পরিচালিত ফ্রি সেমিনার অন প্রোএকটিভ এন্ড পজিটিভ এটিচিউড এর ২৩তম পর্ব অনুষ্ঠিত হয় ২৭ নভেম্বর ২০১৪ ক্যাম্পাস অডিটোরিয়ামে। ইতিবাচক চিন্তা-চেতনার পজিটিভ জাতি গড়ে তোলার প্রক্রিয়া হিসেবে ক্যাম্পাস সোস্যাল ডেভেলপমেন্ট সেন্টার (সিএসডিসি) নিয়মিত পরিচালনা করে এ সেমিনার। সে ধারাবাহিকতায় আয়োজিত সেমিনারের বিষয় ছিল How to create positive thought. বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস পত্রিকার সম্পাদক এবং সিএসডিসি’র মহাসচিব এম হেলালের সঞ্চালনায় উক্ত সেমিনারে মুখ্য বক্তা ছিলেন প্রোএকটিভ এটিচিউড আন্দোলনের জনপ্রিয় প্রবক্তা, গবেষক ও চিত্তাকর্ষক উপস্থাপক ড. আলমাসুর রহমান।

ড. আলমাসুর রহমান
ড. আলমাসুর রহমান বলেন- সৃষ্টির সেরা মানুষ সর্বদা পজিটিভ চিন্তা করবে, এটিই স্বাভাবিক। তবুও এক শ্রেণির মানুষের মনে কেবলই নেতিবাচক চিন্তা ভর করে থাকে। তারা সবকিছু নেতিবাচক দৃষ্টিতে দেখে। অথচ মন সুন্দর হলে সবই ভালো লাগে, সবকিছু ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখা যায়। তাই আমাদের মনকে পরিষ্কার করতে হবে। কীভাবে মন পরিষ্কার করব, কি করে ভালো চিন্তা করব -এটি ভাববার বিষয়। জনপ্রিয় উপস্থাপক ড. আলমাসুর রহমান বলেন, Positive thought গড়ে তুলতে হলে Quality of Information, Past Experience এবং Belief System ঠিক থাকতে হবে।
Quality of Information অর্থাৎ তথ্যের গুণাগুণের ওপর নির্ভর করে গড়ে ওঠে Positive অথবা Negative thought. উদাহরণ টেনে ড. আলমাস বলেন, এক পুলিশ অফিসারের কাছে খবর আসলো তার এক অধস্তনের ঢাকায় ৪টি বাড়ি, গ্রামে ১০টি পুকুর, শহরে ১০টি বাস চলছে। এসব খবর শুনে সিনিয়র পুলিশ অফিসার ভাবলেন, সবাই টাকা বানাচ্ছে, তিনি কেন বসে থাকবেন? এ নেগেটিভ তথ্যই তাকে সর্বনাশের পথে নিয়ে গেল। তাই তথ্যের কোয়ালিটি বজায় রাখব; খারাপ খবর, নেগেটিভ চিন্তা মাথায় ভর করতে দেব না; পরিবেশ সুন্দর রাখার চেষ্টা করব। পরিবেশ ভালো থাকলে ভাবনাও ভালো হবে; সুন্দর ও চিত্তাকর্ষক কাজ হবে।
ড. আলমাস বলেন, Past Experience বা অতীত অভিজ্ঞতাও Positive অথবা Negative thought এর জন্ম দিতে পারে। উদাহরণস্বরূপ বলেন, এক লোক তার এক পরিচিতজনকে টাকা ধার দিয়ে ফেরত পাননি; সেই চেতনায় তার মাথায় ঢুকেছে যে, ধার দিলে টাকা ফেরত পাওয়া যায় না। কেউ অন্য কাউকে ধার দিতে চাইলে কিংবা কোনো উপকার করতে গেলে তিনি নিষেধ করেন। অর্থাৎ নেগেটিভ চিন্তা মাথায় ঢোকার পরই তার মানবিক গুণ আচ্ছন্ন হয়ে পড়েছে।
ড. আলমাস বলেন, Positive thought গড়ার ক্ষেত্রে Belief System একটি গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর। Belief System বা বিশ্বাসের ভিত্তি যার যত দৃঢ় হবে তিনি তত বেশি Positive thought এর অধিকারী হবেন। উদাহরণস্বরূপ ড. আলমাস বলেন, আপনি আপনার শিল্পী-বন্ধুর সাথে আলাপ করছেন পার্কে বসে। বন্ধুটি অনেক পরিচিত, সবাই তাকে সালাম দেয়, কেমন আছেন জানতে চায়, কিন্তু আপনার সাথে কেউ কথা বলে না। এক্ষেত্রে আপনার Belief System দুর্বল হলে আপনি বন্ধুর জনপ্রিয়তার বিষয়ে হীনম্মন্যতায় ভুগবেন, আর আপনার Belief System মজবুত হলে আপনার বন্ধুর সাফল্যে গৌরবান্বিত হবেন। অর্থাৎ Belief System এর কারণে একই ঘটনার Positive এবং Negative আউটপুট আসতে পারে। ক্যারিশমেটিক উপস্থাপনার শেষপ্রান্তে এসে ড. আলমাস বলেন, যারা বাইরের কোনো পরিস্থিতি দ্বারা প্রভাবিত হন না, তারাই প্রোএকটিভ থাকতে পারেন। যাদের এ গুণ নেই তাদের Personality নেই। আপনার পরিস্থিতি আপনার নিয়ন্ত্রণে থাকবে। আপনার Remote control আপনার হাতেই থাকতে হবে; তাহলে আপনি কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছে যাবেন।

এম হেলাল
অনুষ্ঠানের সঞ্চালক এম হেলাল বলেন, মানুষের জীবনে Faith বা বিশ্বাস একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। সকলের মনে এ বিশ্বাস থাকতে হবে যে- আমি পারি, আমরাও পারব। তাহলে আমরা Positive thinking create করতে পারব, জেনারেট করতে পারব পজিটিভ এনার্জি। তিনি বলেন- Positive thinking করতে করতে একদল মানুষ পা রাখছে সাফল্যের ও স্বর্গের সিঁড়িতে, অন্যদিকে Negative thinking করতে করতে একদলের ঠিকানা হচ্ছে ব্যর্থতা ও নরকে। তাই আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে আমরা কোন্ দিকে যেতে চাই।