বিশেষ খবর

দ্রæত স্কুল-কলেজ খুলে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছি

ক্যাম্পাস ডেস্ক শিক্ষা সংবাদ
img

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খুব তাড়াতাড়ি স্কুল-কলেজ খুলে দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে উল্লে­খ করে বলেছেন, করোনার কারণে বন্ধ থাকা স্কুল-কলেজ শীঘ্রই খুলে দেয়ার ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। আমরা খুব তাড়াতাড়ি স্কুল-কলেজ খুলে দেয়ার জন্য ইতোমধ্যেই নির্দেশ দিয়েছি। সেই ব্যবস্থাও নেয়া হচ্ছে। শিক্ষকদের পাশাপাশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যারা কর্মরত আছেন তাদের পরিবারের সদস্যদের যেন টিকা দেয়া হয় সে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী এ সময় সকলকে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দেয়ার পাশাপাশি ডেঙ্গু প্রতিরোধে বাড়ির চারপাশ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার আহŸান জানান। সম্প্রতি জাতীয় সংসদ অধিবেশনে আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচিত চলতি জাতীয় সংসদের সিরাজগঞ্জ-৬ থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য ও সাবেক শিল্প উপমন্ত্রী হাসিবুর রহমান স্বপনের মৃত্যুতে আনীত শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। জাতীয় সংসদে আগের দিন এক সংসদ সদস্যের শোক প্রস্তাবের পরদিন আরেক সংসদ সদস্যের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাবে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, সংসদ সদস্যদের মৃত্যুর শোক নিয়েই যেন চলতে হচ্ছে। শোকের ব্যথা যেন যাবে না, একের পর এক শোক নিয়েই যেন চলতে হচ্ছে। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশনে শোক প্রস্তাবের ওপর আরও আলোচনায় অংশ নেন বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের, সরকারদলীয় হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, বিরোধী দলীয় চীফ হুইপ মশিউর রহমান রাঙ্গা, সাবেক সরকারদলীয় চীফ হুইপ আ স ম ফিরোজ, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকু, আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য আবদুল আজিজ ও বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট হারুনুর রশিদ। আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্কুলের ছেলেমেয়েদের বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কতগুলো নির্দেশনা রয়েছে। সেই নির্দেশনা মেনেই টিকা দেয়ার ব্যবস্থা নিচ্ছি। যার জন্য কিছু ফাইজার টিকা ইতোমধ্যে এসে পৌঁছেছে, আরও পৌঁছাবে। মডার্নার জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছি। তাছাড়া অন্যান্য টিকাও আসছে। ইতোমধ্যে টাকাও পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। ৬ কোটি টিকার টাকা পাঠিয়ে দিয়েছি। পর্যায়ক্রমে টিকা আসতে থাকবে। কারণ এগুলো সংরক্ষণ পরিকল্পনা আমাদের নিতে হচ্ছে। এগুলো আমরা করে যাচ্ছি। সংসদ নেতা বলেন, টিকার কোনো সমস্যা নেই। যেখান থেকে যতভাবে হোক আমরা টিকা নিয়ে আসছি। খুব তাড়াতাড়ি স্কুল-কলেজ খুলে দেয়ার জন্য ইতোমধ্যে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। শিক্ষকদের টিকা দেয়া হয়েছে। তাদের সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত এবং তাঁদের পরিবারকেও যেন টিকা দেয়া হয়। আমরা স্বাস্থ্যকর্মীসহ তাদের বাড়ির কাজের মানুষ, গাড়ির চালক ও পরিবারের সদস্য সবাই যেন টিকা পায় সেই ব্যবস্থাটাও নিচ্ছি।


আরো সংবাদ

শিশু ক্যাম্পাস

বিশেষ সংখ্যা

img img img

আর্কাইভ