বিশেষ খবর

মেধাবীদের টানছে না শিক্ষকতা পেশা

ক্যাম্পাস ডেস্ক সংবাদ

দেশে মেধাবীদের সর্বোচ্চ চাকরি বিসিএস। বিসিএসের ২৬টি ক্যাডারের মধ্যে শিক্ষা ক্যাডার প্রথম পছন্দ দিয়েছেন এমন প্রার্থী খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। দেখা গেছে, প্রার্থীরা শেষ পছন্দ হিসেবে শিক্ষা ক্যাডার দিয়ে থাকেন। ফলে যাঁরা এখন বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারে বিভিন্ন সরকারি কলেজে চাকরি করছেন, তাঁরা অন্য কোনো ক্যাডারে উত্তীর্ণ হতে না পেরেই শিক্ষকতায় এসেছেন। সরকারি প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের অবস্থাও একই। অন্য কোনো চাকরি না পেয়েই তাঁদের বেশিরভাগ শিক্ষকতায় আসছেন। তবে এর সমান্তরালে বিশ্ববিদ্যালয়ে মেধাবীরা এলেও বেশিরভাগই শেষ পর্যন্ত থাকছেন না।
এই অবস্থায় পালিত হলো বিশ্ব শিক্ষক দিবস ২০২০। বিভিন্ন শিক্ষক সংগঠন নানা আয়োজনে দিবসটি পালন করছে। এ বছর ইউনেসকো দিবসটির প্রতিপাদ্য বিষয় নির্ধারণ করেছে ‘শিক্ষক ঃ সংকটে নেতৃত্ব, নতুন করে ভবিষ্যতের ভাবনা’।
মেধাবীরা কেন শিক্ষকতায় আসছেন না, সেই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে জানা যায়, দেশে শিক্ষকতা পেশা মোটেই আকর্ষণীয় নয়। এমনকি বাংলাদেশে শিক্ষকদের বেতন দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সর্বনিম্ন। শিক্ষকদের বেতন-ভাতা আগের চেয়ে বাড়লেও মর্যাদায় এগোচ্ছে না। প্রাথমিকের শিক্ষকরা এখনো তৃতীয় শ্রেণির কর্মচারী, যা বিশ্বেই বিরল। জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০-এ শিক্ষকদের স্বতন্ত্র বেতন কাঠামোর কথা বলা হলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি গত ১০ বছরেও। ফলে শিক্ষকরাও নিজ পেশায় মনোযোগ না দিয়ে অন্যান্য কাজে ঝুঁকে পড়ছেন।
বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলেন, ভালো জাতি তৈরি করতে ভালো শিক্ষক দরকার। এজন্য আমাদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সবার আগে নজর দিতে হবে। সেখানে মেধাবী শিক্ষক দরকার। মেধাবীদের প্রাথমিকের শিক্ষকতায় আনতে হলে ভালো বেতন দিতে হবে। তাঁরা যাতে দুশ্চিন্তামুক্ত থেকে দায়িত্ব পালন করতে পারেন সেই ব্যবস্থা করতে হবে। মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়েও মেধাবীদের আনতে হবে। এজন্য যোগ্য লোককে উপযুক্ত বেতন দিতে হবে। আমাদের শিক্ষায় বিনিয়োগ এখনো কম, এটাই বড় সমস্যা।
কয়েকটি দেশের বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের বেতন স্কেল পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, আমাদের দেশে একজন প্রভাষকের মূল বেতন ২২ হাজার এবং অধ্যাপকের ৬৪ হাজার ৬০০ টাকা। তবে বেশিরভাগ দেশেই বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে প্রভাষকের পদ নেই। তাঁদের শুরু সহকারী অধ্যাপক দিয়ে। ভারতে সহকারী অধ্যাপকদের বেতন স্কেল ৫৫ হাজার টাকা, সহযোগী অধ্যাপকের ৯০ হাজার টাকা এবং অধ্যাপকের এক লাখ ১০ হাজার টাকা। পাকিস্তানে সহকারী অধ্যাপকের মূল বেতন এক লাখ চার হাজার টাকা, সহযোগী অধ্যাপকের এক লাখ ৫৬ হাজার টাকা এবং অধ্যাপকের দুই লাখ ৩৪ হাজার টাকা।


আরো সংবাদ

শিশু ক্যাম্পাস

বিশেষ সংখ্যা

img img img

আর্কাইভ