বিশেষ খবর

নিজের সফল ক্যারিয়ার গঠনে আপনার করনীয় দশটি কাজ

ক্যাম্পাস ডেস্ক ক্যারিয়ার গাইড
img

ভূমিকা
সমাজের সার্বিক অবস্থা প্রত্যক্ষ করলে প্রতিভাবান অনেক ফুটন্ত গোলাপ অঙ্কুরেই ঝরে যেতে দেখা যায়। যথেষ্ট মেধা এবং দক্ষতা থাকা সত্ত্বেও সঠিক দিক নির্দেশনার অভাবে এখনকার তরুন-তরণীদের অনেকের ক্যারিয়ার হয় অন্ধকারচ্ছন্ন। ব্যক্তিগত, প্রাতিষ্ঠানিক কিংবা রাষ্ট্রীয় কোন ক্ষেত্রেই আমাদের দেশে সুচারু পরিকল্পনার লেশমাত্র নেই।
১. স্বীয় প্রতিভা এবং দক্ষতা শনাক্তকরন (Identification of own genius and skills)
বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অনেকে নিজের মেধা এবং দক্ষতা নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দে উপনীত হয়। বস্তুত নিজের উপর যথেষ্ট অনাস্থা থেকেই এ ধরনের দ্বিধাদ্বন্দের সৃষ্টি। এ থেকে উত্তরনের জন্য প্রয়োজন আত্মপর্যালোচনা (Self-evaluation) এবং তার উপর ভিত্তি করে নিজের অবস্থান (Positioning yourself) নির্ধারন করা, নিজের দক্ষতা এবং পারদর্শীতা শনাক্ত করা। আকাশ কুসুম স্বপ্ন কিংবা কল্পনা অবশ্যই পরিতাজ্য।
২. লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য প্রণয়ন (Setting goals and objectives)
নিজের অবস্থান নির্ধারন এবং ক্যারিয়ার গঠনের একাধিক পথ উদ্ভাবন করার পর, একজনের পরবর্তী কাজ হল জীবনের সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য প্রনয়ন করা। যেমন একজন লোকের তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ে আগ্রহ এবং কিছুটা পারদর্শীতা আছে।
৩. স্বল্প এবং দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহন (Short and long-term planning)
লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য নির্ধারন করার পরের ধাপ স্বল্প এবং দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহন করা। ধোঁয়াশাচ্ছন্ন নয়, পরিকল্পনা হতে হবে সুনর্দিষ্ট, যথাযথ এবং অর্থবোধক; ক্যারিয়ার গঠনের পথ পরিক্রমার সাথে সঙ্গতিপূর্ণ। এ ধাপে অন্তর্ভুক্ত থাকবে কি করতে চাই, কিভাবে করতে চাই, কখন করতে চাই, আগামী পাঁ বছর বা দশ বছর পর নিজেকে কোথায় দেখতে চাই ইত্যাদি।
৪. শিক্ষা অর্জন ও মেধার সর্বোচ্চ ব্যবহার (Education and maximum use of your head)
সাবলীল ক্যারিয়ার গঠনে শিক্ষার বিকল্প নেই। বিভিন্ন ক্ষেত্রে সম্ভাবনাময় এবং দক্ষ হওয়া সত্ত্বেও পরিপূর্ণ শিক্ষার অভাবে অনেকেই সে দক্ষতা সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারে না। পুথিগত বিদ্যার পাশাপশি প্রয়োজন প্রচুর পরিমানে ব্যবহারিক শিক্ষা গ্রহন করা। নিজেকে মেধাহীন কিংবা অন্যদের চেয়ে কম মেধাবী মনে করলে চলবে না, বরং যতটা সম্ভব লেখাপড়া করতে হবে নিঃসংকোচে। খাওয়া-দাওয়া ভুলে কিংবা ইচ্ছার বিরুদ্ধে কোন কিছু করাই ফলদায়ক নয়, পড়াশুনাও।
৫. সময়ের যথাযথ ব্যবহার (Optimum use of time)
সময়ের গুরুত্ব সর্বসময়েই অনস্বীকার্য। তবে ছাত্রজীবনে সময় অন্যরকম গুরুত্ব বহন করে। বস্তুত এখানে সময়ের সদ্ব্যবহার করতে অপারগ হলে, না পাওয়ার বেদনায় বাকি জীবনটা ছারখার হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা থাকে। যদিও ছাত্রজীবনেই সময়টা অধিকতর তাৎপর্যপূর্ন, দুঃখজনক হলেও সত্য জীবনের এই স্তরেই সময়ের সবচেয়ে যথেচ্ছ ব্যবহার হয়ে থাকে।
৬. অগ্রাধিকার নির্ধারন (Ascertaining priority)
সময়ের সাথে অগ্রাধিকার বিষয়টিও বেশ গুরুত্বের দাবী রাখে। সময় এং আগ্রাধিকার নির্বাচন বিষয় দুটি একে অপরের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ন। সঠিক সময়ে সঠিক কাজটা করতে পারার ভিত্তিটাই হল অগ্রাধিকার নির্বাচন করা। ছেলে মেয়েরা অধিকাংশ ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার নির্বাচন করতে ব্যর্থ হয়। ফলশ্রুতিতে সঠিক সময়ে সঠিক কাজ কিংবা সময়ের কাজ সময়ে করা কারো কারো পক্ষে কখনও কখনও সম্ভবপর হয় না। স্থান, কাল এবং পাত্রভেদে অগ্রাধিকার ভিন্নতর হতে পারে।
৭. সমাজের অবস্থা বিবেচনা করা (Considering overall condition of the society)
সফলতা লাভে নিজের ইচ্ছা-অনিচ্ছার সাথে সাথে সমাজের অবস্থা এবং সময়ের দাবীর প্রতি লক্ষ্য রাখাটাও অত্যন্ত জরুরী। সমকালীন সময়ে প্রচলিত ধারাকে এড়িয়ে যাওয়ার কোন সুযোগ নেই। তবে ক্ষেত্র বিশেষে চলমান ধারার বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে পারাটাও বিশেষ প্রশংসার দাবী রাখে। সফল ক্যারিয়ার গড়ার উদ্দেশ্যে হলেও নীতির বিষয়ে আপোসরফা কোনভাবেই গ্রহনযোগ্য নয়।
৮. হতাশাগ্রস্থ না হওয়া (No disappointment)
যথেষ্ট মেধা এবং দক্ষতা থাকা সত্ত্বেও গৌরবময় ক্যারিয়ার গঠনের নিশ্চয়তা নেই। সেক্ষেত্রে বর্তমান অবস্থা মেনে নিয়ে আরও চেষ্টা সাধনা করাটাই অধিকতর যৌক্তিক। জীবনের যে কোন পর্যায়ে হতাশ হওয়ার কোন সুযোগ নেই, চাই সেটা ছাত্রজীবনই হোক কিংবা পেশাগত জীবন। হতাশা থেকে মানুষের মধ্যে আস্তে আস্তে নিজের উপর অনাস্থা বৃদ্ধি পেতে থাকে, স্বীয় মেধা এবং পারদর্শীতা নিয়ে নিজের মধ্যেই প্রশ্নের সৃষ্টি হয়।
৯. অতীত অভিজ্ঞতা কাজে লাগানো (Utilization of experiences)
সফল ব্যক্তি কিংবা গোষ্ঠি অতীত নিয়ে নয়, অতীত থেকে শিক্ষা নিয়ে জীবন যাপন করে। যে ব্যক্তি, গোষ্ঠি কিংবা জাতি অতীত আকড়ে বাচতে চেয়েছে, তারা ব্যর্থতার তলানীতে নিক্ষিপ্ত হয়েছে। তবুও অতীত ভুলে যাওয়ার কোন সুযোগ নেই।
১০. নিয়তীর উপর নির্ভরশীলতা (Relying on fate)
প্রকৃতির নিয়ম-কানুন আর মানুষের চিন্তা-চেতনা কিংবা আশা-আকাঙ্খার মধ্যে অনেক সময় বিস্তর ফারাক লক্ষ্য করা যায়। ফলে অনেকেই নিয়তী কিংবা প্রকৃতিকে দোষারোপ করে থাকেন। বস্তুত কোন অবস্থাতেই প্রকৃতির সাথে বিবাদে লিপ্ত হওয়া কাঙ্খিত নয়।
শেষ কথা
সফল ক্যারিয়ার গড়তে পারিপার্শ্বিক অবস্থা কিংবা বিভিন্ন পেশা সম্পর্কে যে ধরনের জ্ঞান থাকা দরকার, তা অনেকের মধ্যেই অনুপস্থিত। পারিবারিক চাহিদা এবং গোড়ামিও কারও কারও ক্ষেত্রে ঋনাত্বক ভুমিকা পালন করে। তাই আত্বসচেতনতা সৃষ্টি করাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। একজনের পারদর্শিতা কিংবা আগ্রহের ব্যাপারে সে নিজেই সবচেয়ে বেশি ওয়াকেবহাল।


আরো সংবাদ

শিশু ক্যাম্পাস

বিশেষ সংখ্যা

img img img

আর্কাইভ