বিশেষ খবর

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় বনাম প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়

ক্যাম্পাস ডেস্ক প্রতিবেদন

বিষয়ের নাম ‘হেলথ সায়েন্স’। কেউ কেউ বলেন, ‘পাবলিক হেলথ।’ এই মুহূর্তে বেশ চাহিদাসম্পন্ন বিষয়টিতে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে চার বছরের অনার্স ও এক বছরের মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করতে একজন শিক্ষার্থীকে ব্যয় করতে হয় আড়াই লাখ টাকা। অথচ কোনো কোনো প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় মাত্র ১০ মাসের একটি কোর্স পড়ানোর নামে শিক্ষার্থীর কাছ থেকে নিয়ে নিচ্ছে প্রায় ১৩ লাখ টাকা। কেবল এই একটি বিষয়েই নয়, পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখার খরচের বিশাল ব্যবধান স্পষ্ট এখন প্রায় সকল বিষয়েই। এই ব্যবধান প্রাইভেটে পাবলিক অপেক্ষা গড়ে চারগুণ বেশি। কোনো কোনো ক্ষেত্রে আরও বেশি। তবে বাস্তবতা হলো, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়েও পড়ালেখার মোট খরচ আসলে কম নয়। এখানে শিক্ষার্থীর প্রায় ৯০ শতাংশ ব্যয় বহন করছে রাষ্ট্র। ফলে খরচ ১০ থেকে ১৫ লাখ টাকা পর্যন্ত হলেও তার ভার বহন করতে হয় না ব্যক্তিকে।
প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাদান কার্যক্রম নিয়ে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সন্ত্রাস ও সেশনজট কমানো আর বিদেশমুখী প্রবণতা রোধের স্বপ্ন নিয়ে ১৯৯২ সালে দেশে যাত্রা শুরু হয়েছিল শিক্ষার নতুন এক ধারা যার নাম প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়। কিন্তু দীর্ঘ ১৯ বছর পরেও অধিকাংশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সওদাগরি মানসিকতার বলি হচ্ছে শিক্ষা ও শিক্ষার্থীরা। বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান ভাল করার চেষ্টা করলেও এখন পর্যন্ত সফল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা ১০ থেকে ১১টির বেশি নয়। অন্যদিকে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের মত হচ্ছে, বিশ্ববিদ্যালয় নিজস্ব আয় বাড়াতে পারছে না। ফলে সরকারি অর্থের ওপরই বিশ্ববিদ্যালয়কে নির্ভর করতে হচ্ছে। শিক্ষার্থীরা জানেও না তার পড়ালেখার খরচ কত?
৮৩ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে মান ভাল মাত্র ১০টির
সন্ত্রাস ও সেশনজট কমানো আর বিদেশমুখী প্রবণতা রোধের স্বপ্ন নিয়ে ১৯৯২ সালে দেশে যাত্রা শুরু হয়েছিল প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের। এই দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় শত সমালোচনা ও বিতর্ককে কাটিয়ে কিছু প্রতিষ্ঠান চলে এসেছে সফলতার তালিকায়। শিক্ষা ব্যয়ের পরিমাণ নিয়ে কিছু প্রশ্ন থাকলেও যেখানে স্থায়ী ক্যাম্পাস ছাড়াও নিশ্চিত হচ্ছে ভর্তি পরীক্ষা। সরকারের নিয়ম নীতি মেনে মানসম্মত উচ্চ শিক্ষার স্বার্থে যেখানে বন্ধ হয়েছে টাকার বিনিময়ে অযোগ্যদের ভর্তির সুযোগ। কিন্তু মানসম্মত প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা কত? কতটি আসলে শিক্ষা দিচ্ছে? বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞদের মতে, বেশকিছু প্রতিষ্ঠান ভাল করার চেষ্টা করলেও এখন পর্যন্ত সফল প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা ১০টির বেশি নয়। অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয়েরই আজো নিজস্ব ক্যাম্পাস নেই।
বাংলাদেশে উচ্চ শিক্ষা নিচ্ছেন এমন ৬৩ শতাংশ শিক্ষার্থীই পড়ছেন প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে, কিন্তু হতাশাজনক হলেও এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে মাত্র ১০টি মান ভাল। বাকিগুলোর মান ‘মোটামুটি’, অনেকগুলোর মান ‘খুব খারাপ। এমন চিত্রই উঠে এসেছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের এক জরিপের তথ্যে। কমিশনের তথ্য অনুযায়ী ঢাকাসহ সারাদেশে ৮৩টি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় পৌনে পাঁচ লাখ শিক্ষার্থী রয়েছে। মঞ্জুরি কমিশনের সদস্য অধ্যাপক মোঃ মহব্বত খান বলেছেন, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সব একই মানের নয়। শিক্ষার্থীদের জন্য সুবিধা, শিক্ষকের মান, অবকাঠামো এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের চরিত্র সবদিক থেকে পার্থক্য রয়েছে। কমিশনের একাধিক সদস্য জানিয়েছেন, ৮৩টি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ২৬টির মান মোটামুটি। তার মধ্যে দশটি ভাল মানের। বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে সার্টিফিকেট বাণিজ্য করার অভিযোগ তারা পেয়েছেন।
অনেক বিশ্ববিদ্যালয় ঢাকায় এবং দেশের বিভিন্ন স্থানে অলিগলিতে ভাড়া করা ভবনে কার্যক্রম চালাচ্ছে। এগুলোর মান খুব খারাপ। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি’র ক্ষেত্রে একক কোনো কাঠামো নেই। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিজেদের ব্যয়কে ভিত্তি করে টিউশন ফি নির্ধারণ করে থাকে। প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর জন্য ২০১০ সালের আইন অনুযায়ী নিজস্ব ক্যাম্পাস থাকা বাধ্যতামূলক। অথচ ৮৩টি মধ্যে ৭২টি বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ক্যাম্পাসই নেই। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দোকানের মতো ভাড়া করা ফ্লোরে চলছে শিক্ষাদান। শিক্ষা মন্ত্রণালয় বার বার স্থায়ী ক্যাম্পাসে যাওয়ার তাগিদ দিলেও কাজ হচ্ছে না। বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয় খ-কালীন শিক্ষকের ওপর নির্ভরশীল। আইনে বলা আছে, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় নিজে ট্রাস্টি বোর্ড গঠন করে তার অধীনে কার্যক্রম চালাবে। বাণিজ্যিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে বিশ্ববিদ্যালয় চালানো যাবে না। এটাকে সেবা খাত হিসেবে আইনে উল্লেখ করা হয়েছে। মঞ্জুরি কমিশনের সদস্যরাই বলছেন, তারা নিয়মিত মনিটর এবং জরিপ করে থাকেন। তবে কোনো প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় পুরোপুরি সেবাখাত হিসেবে চলছে না। ভাল মানের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেও ট্রাস্টি বোর্ডের একটি বৈঠকে যোগ দেয়ার জন্য ট্রাস্টিরা ৪০ হাজার টাকা পর্যন্ত ফি নিচ্ছেন বলে অভিযোগ আছে। অথচ আইন অনুযায়ী টাকা নেয়ার কোনো সুযোগ নেই। মঞ্জুরি কমিশনের এক কর্মকর্তা বলছিলেন, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সরকারকে জিম্মি করে ফেলেছে। তারা কোনো নির্দেশনাই মানছে না। শুধু কালক্ষেপণ করছে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে গেলেই তারা আদালতে যায়। আদালতের আদেশ নিয়ে শিক্ষা কার্যক্রম চালায়। ফলে ইউজিসি এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কোনো কিছুই করার থাকে না। আবার অধিকাংশ মানহীন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ মন্ত্রণালয়সহ সরকারের সঙ্গে দেন দরবার করার জন্য সরকার সমর্থক প্রভাবশালী ব্যক্তিদের ট্রাস্টি বোর্ডে অন্তর্ভুক্ত করেছে।
ছয়টি বিশ্ববিদ্যালয় আছে যাদের বিরুদ্ধে সরকার বিভিন্ন সময় ব্যবস্থা নিয়েছিল। কিন্তু ওই বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আদালতের স্থগিতাদেশ নিয়ে শিক্ষা কার্যক্রম চালাচ্ছে। সর্বশেষ কুইন্স ইউনিভার্সিটি এবং আমেরিকা বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় দুটি সরকার বন্ধ করে দিয়েছিল। কিন্তু আদালতের আদেশ নিয়ে তারা ফের শিক্ষা কার্যক্রম চালাচ্ছে। ২৫টি বিশ্ববিদ্যালয় আইন অমান্য করে কার্যক্রম চালাচ্ছে। এদের তিনটি আদালতে স্থগিতাদেশ নিয়ে চলছে, ১৭টি চলছে মামলা করে।
প্রাইভেটের মান প্রশ্নবিদ্ধ তবু পড়ার খরচ পাবলিকের কয়েকগুণ
দেশে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় আছে ৩৭টি, বিপরীতে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় আছে ৮৩টি। এ দুই ধারার প্রতিষ্ঠানে প্রায় প্রতিটি বিষয়েই পড়ালেখার খরচে রয়েছে বিস্তর তফাত। এই তফাতের চিত্রের দিকে তাকালেই স্পষ্ট হয়ে উঠবে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখা করতে শিক্ষার্থী ও তার পরিবারকে দিতে হয় কত টাকা? বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) ও অন্যান্য সরকারি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার সায়েন্স এ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে চার বছর মেয়াদি অনার্স ও এক বছরের মাস্টার্স করতে শিক্ষার্থীদের মোট ব্যয় চার থেকে সাড়ে চার লাখ টাকা। এর মধ্যে অনার্সের ব্যয় তিন থেকে চার লাখ। ঢাকাসহ সাধারণ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে আড়াই থেকে তিন লাখ টাকা ব্যয় হয় অনার্স ও মাস্টার্স করতে। বিপরীতে একটি ভাল মানের প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স ও মাস্টার্স করতে প্রয়োজন ১২ থেকে ১৪ লাখ টাকা। অর্থাৎ প্রায় চারগুণ বেশি। এর মধ্যে অনার্স ১০ থেকে ১২ লাখ টাকা। তবে দেশের প্রথম সারির হাতেগোনা ৫ থেকে ৭টি বিশ্ববিদ্যালয়ের তুলনায় বাকি বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যয়ের পার্থক্য অনেক। অনেক প্রতিষ্ঠানে চার লাখ টাকায়ও অনার্স সম্পন্ন করা যায়। তবে এসব প্রতিষ্ঠানের মান নিয়ে আছে প্রশ্ন।
ট্রিপল ই বা ইলেক্ট্রিক এ্যান্ড ইলেক্ট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে বুয়েট বা অন্যান্য প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যয় চার থেকে সাড়ে চার লাখ টাকা। প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম সারির প্রতিষ্ঠানে ১০ থেকে ১২ লাখ টাকা। অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে ৪ থেকে ৮ লাখ টাকা পর্যন্ত। আর্কিটেকচার বিষয়ে পড়ার আগ্রহ অনেকেরই। তবে এ বিষয়ে যাদের পড়ার আগ্রহ বেশি তাদের প্রথম পছন্দের স্থান বুয়েট, ঢাকাসহ অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়। এ বিষয়ে ডিগ্রি অর্জনে শিক্ষার্থীর ব্যয় আড়াই থেকে ৪ লাখ টাকা। তবে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১০ থেকে ১২ লাখ। সাধারণ কিছু প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে ৪ থেকে ৫ লাখ।
ফার্মেসিতে অনার্স ও মাস্টার্স করতে ঢাকাসহ অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সোয়া আড়াই থেকে তিন লাখ টাকা। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যয় ৮ থেকে ১২ লাখ টাকা। তবে চার লাখ টাকায়ও পড়ার সুযোগ আছে অনেক প্রতিষ্ঠানে।
ইংলিশে অনার্স ও মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করতে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর ব্যয় সোয়া দুই লাখ থেকে আড়াই লাখ টাকা। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫ থেকে ১০ লাখ টাকা। বিবিএ, এমবিএ নেই দেশের এমন প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় খুঁজে পাওয়া যাবে না। যেসব প্রতিষ্ঠান কোচিং সেন্টারের মতো একটি বা দুটি কক্ষে কার্যক্রম চালাচ্ছে তারাও বিবিএ, এমবিএ শিক্ষা কার্যক্রম চালাচ্ছে। ফলে প্রাইভেটে খরচেরও আছে তফাত। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে রেগুলার পড়তে বিবিএতে তিন লাখ। এমবিএতে প্রায় এক লাখ। তবে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়মিত ও সান্ধ্য পড়ালেখায় ব্যয় প্রায় ১০ লাখ। অনেকটা প্রাইভেটভাবেই এই কার্যক্রমটি চলছে ঢাকা, রাজশাহীসহ হাতেগোনা কয়েকটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিবিএতে ১০ থেকে ১২ লাখ লাখ। এমবিএতে ২ থেকে আড়াই লাখ।
হেলথ সাইন্স, পাবলিক হেলথ, ফুড এ্যান্ড নিউট্রেশন বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্যান্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে বিএসসি অনার্স করতে ব্যয় হয় আড়াই থেকে তিন লাখ টাকা। তবে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত বেসরকারি কলেজগুলোতে এ বিষয়ে বিএসসি সম্পন্ন করতে ব্যয় হয় অন্তত ছয় থেকে সাত লাখ টাকা।
অন্যদিকে অধিকাংশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে এ বিষয়ে পড়ার সুযোগ নেই। যেখানে আছে সেখানে ব্যয় ১০ থকে ১৩ লাখ টাকা। মাত্র ১০ মাসের একটি কোর্সে পড়িয়েও ১৩ লাখ টাকা নেয়ার নজির আছে। পাবলিক ও প্রাইভেটে পড়ালেখার এমনই খরচের বিস্তর তফাৎ আছে জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং, মাইক্রোবায়োলজি, ফিজিক্স, ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেক্ট্রনিকস এ্যান্ড কমিউনিকেশন, মার্কেটিং, টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং, ইনফরমেশন টেকনোলজি, পাবলিক এডমিনিস্ট্রেশন, বায়ো-কেমেস্ট্রিস, টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়েও।
পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রকৃত খরচ বহুগুণ, তবে বহন করছে রাষ্ট্র
পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে দৃশ্যত শিক্ষার্থীদের অর্থ ব্যয় কম দেখা গেলেও মোট ব্যয় অনেক। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের মোট শিক্ষা ব্যয়ের ৯০ ভাগ পর্যন্ত বহন করে রাষ্ট্র। সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয় অপেক্ষা বিজ্ঞান, চিকিৎসা, প্রকৌশল ও কৃষি বিশ্ব¦বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা অর্জনের ব্যয় বেশি। একজন শিক্ষার্থীর বার্ষিক মাথাপিছু ব্যয় দুই লাখ থেকে আড়াই লাখ টাকা। চার বছরের একজন শিক্ষার্থীর পেছনে সরকার ব্যয় করে প্রায় ১০ লাখ টাকা। ফলে ব্যয় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়েই বেশি হয়। তবে তা বহন করে রাষ্ট্র। চলতি অর্থবছরেই দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের জন্য দুই হাজার ১৭৮ কোটি ৮৪ লাখ টাকার বাজেট বরাদ্দ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)।
এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়গুলোও আলাদা আলাদাভাবে বাজেট বরাদ্দ করে। শিক্ষা খাতে রাষ্ট্রীয় অর্থের অপ্রতুলতা নিয়ে নানা প্রশ্ন থাকলেও দেশের পাবলিক শিক্ষা খাতে উচ্চ শিক্ষাস্তরের শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার ৮৫ থেকে ৯০ শতাংশ ব্যয়ই বহন করছে রাষ্ট্র। এই মুহূর্তে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থীর বার্ষিক মাথাপিছু ব্যয় সর্বাধিক দুই লাখ ৬৬ হাজার ৬৩৮ টাকা, দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই লাখ ২৮ হাজার ৬৪৮ টাকা।
দেশের উচ্চশিক্ষা তদারকি প্রতিষ্ঠান বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) এক প্রতিবেদনে উচ্চ শিক্ষার ব্যয় ও তাতে রাষ্ট্রীয় অবদানের বিষয়ে এমন তথ্য উঠে এসেছে। কমিশন বলছে, বিশ্ববিদ্যালয় নিজস্ব আয় বাড়াতে পারছে না। ফলে সরকারি অর্থের উপরই বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয়কে নির্ভর করতে হচ্ছে। উচ্চশিক্ষা অর্জনে একজন শিক্ষার্থীর মোট শিক্ষা খরচের ৮৫ থেকে ৯০ শতাংশ অর্থ সরকার অর্থাৎ জনগণের টাকায় বহন করা হচ্ছে। এই অবস্থায় শিক্ষার উচ্চ মান ধরে রাখতে হলে রাষ্ট্রের বরাদ্দের বাইরেও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর নিজস্ব আয় বাড়ানো জরুরি। জানা গেছে, জাতীয় ও উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়া এ সময় দেশের ৩৫টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সংখ্যা দুই লাখের মতো। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ে লেজুড়বৃত্তি ছাত্র ও শিক্ষক রাজনীতি, ক্যাম্পাস সহিংসতা এবং সেশনজটের কারণে রাষ্ট্রীয় অর্থের অপচয়ও হচ্ছে।
বিশেষ করে চার বছরের স্নাতক শেষ করতে ছয় বছর ও এক বছরের স্নাতকোত্তর শেষ করতে শিক্ষার্থীদের দুই থেকে আড়াই বছর লাগছে। শিক্ষা জীবন শেষ করতে বাড়তি সময়ের কারণেও রাষ্ট্রকে অতিরিক্ত খরচ বহন করতে হচ্ছে। প্রতিবেদনে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক মাথাপিছু ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে। এখানে দেখা গেছে ঢাকা, রাজশাহী, বাংলাদেশ প্রকৌশল, চট্টগ্রাম, জাহাঙ্গীরনগর, ইসলামী, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, খুলনা, উন্মুক্ত, হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, মওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, শেরেবাংলা কৃষি, চট্টগ্রাম প্রকৌশল, খুলনা প্রকৌশল, ঢাকা প্রকৌশল, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, জগন্নাথ, কুমিল্লা, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম, চট্টগ্রাম ভেটেরেনারি, সিলেট কৃষি, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস, বেগম রোকেয়া, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাথাপিছু গড় ব্যয় বিগত বছরের তুলনায় হ্রাস পেয়েছে। অপরদিকে বাংলাদেশ কৃষি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি, রাজশাহী প্রকৌশল, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি এবং বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী প্রতি মাথাপিছু গড় ব্যয় গত বছরের তুলনায় বৃদ্ধি পেয়েছে। এ ছাড়া জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত দুই হাজারেরও বেশি কলেজে ২০ লাখ শিক্ষার্থী লেখাপড়া করছে। কমিশন থেকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়কে কোনো রাজস্ব বরাদ্দ দেয়া হয় না। নিজেদের আয় থেকেই ব্যয় করে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়।
সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে শিক্ষার্থী প্রতি বার্ষিক মাথাপিছু গড় ব্যয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে দেড় লাখ টাকারও বেশি। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই লাখ ২৮ হাজার ৬৪৮ টাকা, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই লাখ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই লাখ ৬৬ হাজার ৬৩৮ টাকা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই লাখ ২৩ হাজার ২০৩ টাকা। হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে এক লাখ, মওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় এক লাখ, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়েও প্রায় এক লাখ, শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে সোয়া এক লাখ, চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে সোয়া এক লাখ, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে এক লাখ, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে এক লাখ, ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে সোয়া এক লাখ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে এক লাখ, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস এ দেড় লাখ টাকা রাষ্ট্র সরাসরি প্রতিবছর শিক্ষার্থীর পেছনে ব্যয় করে। এর বাইরে প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষার্থীর আবাসিক এলাকায় অবকাঠামো নির্মাণ, একাডেমির পানি, বিদ্যুতসহ অন্যান্য ব্যয় আছে। যার পরিমাণ অনেক বেশি হলেও সেটি বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরো ব্যয়ের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত।
শিক্ষার্থীর শিক্ষার পেছনে সরাসরি রাষ্ট্রীয় ব্যয়ের প্রতিবেদনটি নিয়ে কাজ করেছেন ইউজিসির এমন কর্মকর্তারা বলছেন, দেশের শিক্ষায় সরকারি বরাদ্দ নিয়ে প্রশ্ন আছে তা সত্যি। তবে উচ্চ শিক্ষাঙ্গনে রাষ্ট্রের অবদান অনেক।


আরো সংবাদ

শিশু ক্যাম্পাস

বিশেষ সংখ্যা

img img img

আর্কাইভ