বিশেষ খবর

সবার জন্য শিক্ষার সুযোগ নিশ্চিত করতে কাজ করছে সরকার -প্রধানমন্ত্রী

ক্যাম্পাস ডেস্ক সংবাদ
img

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ একদিন শিক্ষিত মানুষের দেশ হবে এবং এই লক্ষ্য বাস্তবায়নে প্রত্যেক ছেলে-মেয়ের শিক্ষার অধিকার নিশ্চিত করতে তাঁর সরকার কাজ করে যাচ্ছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছি। আর এজন্য সকলের আগে সবার জন্য শিক্ষার সুযোগ নিশ্চিত করা দরকার।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবনে চলতি ২০১৬ সালের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ উপলক্ষে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে একথা বলেন।
ছাত্র-ছাত্রীরা নিজেদেরকে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ ও মাদকমুক্ত রাখবে-এ আশাবাদ ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তারাইতো আগামীর ভবিষ্যৎ, তারাই দেশকে আগামীতে নেতৃত্ব দেবে এজন্য এখন থেকেই তাদেরকে যোগ্য হিসেবে গড়ে উঠতে হবে।
এর আগে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সকল বোর্ডের চেয়ারম্যানদের সঙ্গে নিয়ে ফলের অনুলিপি হস্তান্তর করেন। শিক্ষা সচিব ড. সোহরাব হোসেইন এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকতাবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
এ বছর এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা ২৩ এপ্রিল শুরু হয়ে ২২ জুন শেষ হয়। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশিত ৬০ দিনের মধ্যে ফল প্রকাশের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ৫৭ দিনে এই ফল প্রকাশ করল।
উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের প্রধানমন্ত্রী অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, আমাদের দেশের ছেলে-মেয়েরা বিশ্বের অন্যান্য দেশের ছেলে-মেয়েদের থেকে অনেক মেধাবী। এইচএসসি পরীক্ষায় তুলনামূলক ছেলেদের চেয়ে মেয়েদের ফল ভালো উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মেয়েরা এগিয়ে যাচ্ছে, ছেলেদের পিছিয়ে থাকলে চলবে না। আজকাল মেয়েরা মনোযোগ দিয়ে পড়ালেখা করছে, ছেলেদেরও পড়ালেখায় মনোযোগী হতে হবে।
২০১০ সালে তাঁর সরকার দেশে প্রথম শিক্ষানীতি প্রণয়ন করে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষানীতিতে কারিগরি এবং প্রযুক্তিগত শিক্ষার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার সম্প্রসারণে তাঁর সরকার গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষপের তথ্য তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের ছেলে-মেয়েরা যেন স্কুলে শিক্ষা লাভের সুযোগ পায় তার পদক্ষেপ সরকার নিচ্ছে।
তিনি এ সময় হাওড় ও পাহাড়ি এলাকার ছেলে-মেয়েদের জন্য আবাসিক স্কুল গড়ে তোলার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতি নির্দেশ প্রদান করেন।


আরো সংবাদ

শিশু ক্যাম্পাস

বিশেষ সংখ্যা

img img img

আর্কাইভ