বিশেষ খবর

স্কাউটিং এর বিশেষ ট্রেনিং ক্যাম্পে আমার অভিজ্ঞতা

ক্যাম্পাস ডেস্ক শিশু ক্যাম্পাস
img

॥ মাহীর হেলাল ॥ ৯ম শ্রেণি, উইল্স লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল
গত ৫ বছর ধরে স্কাউটিং করছি আমি। স্কাউটিংয়ের বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো তাঁবু-বাস বা ক্যাম্পিং। একজন স্কাউটকে বিভিন্ন ধরনের ক্যাম্প করতে হয় দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য। আমিও এরূপ বিভিন্ন ধরনের ক্যাম্প করেছি। গত ১৯-২২ ফেব্রুয়ারি ব্যতিক্রমী এক ক্যাম্প করি যেটি হলো প্রেসিডেন্ট স্কাউট এওয়ার্ড এর প্রস্তুতিমূলক ‘বিশেষ ট্রেনিং ক্যাম্প’। একজন স্কাউটের জন্য সবচেয়ে বড় সাফল্য- প্রেসিডেন্ট স্কাউট এওয়ার্ড অর্জন। এ এওয়ার্ড পেতে হলে অনেক দক্ষতা থাকা প্রয়োজন। এসকল দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য এই ট্রেনিং ক্যাম্প আয়োজিত হয় গাজীপুরের বাহাদুরপুরে রোভার স্কাউট ট্রেনিং সেন্টারে। এ ক্যাম্প থেকে আমি যেসব বিষয়ে শিখতে পেরেছি, তা নিয়েই লিখছি।
১৯ ফেব্রুয়ারি সকাল ৭টায় আমিসহ ৫০ জন স্কাউট রওনা হই বাহাদুরপুরের উদ্দেশ্যে। পৌঁছানোর পর লিডাররা আমাদের উপদলে ভাগ করে দেন। এই ক্যাম্পে মোট ৬টি উপদল ছিল। একটি উপদলের নেতা ছিলাম আমি। উপদলগুলোর নাম ছিল গ্রীক দেবতাদের নামানুসারে। আমার উপদলের নাম ছিল Poseidon অর্থাৎ সাগরের দেবতা। আমার পেট্রোলে সদস্য ছিল ৮ জন। অন্য ক্যাম্পের মতো এই ক্যাম্পেও তাঁবুর মধ্যে থাকতে হয়েছে। উপদল ভিত্তিক তাঁবু টানানো হয়েছিল। কীভাবে তাঁবু টানাতে হয়, প্রথমে তা দেখানো হলো। এরপর আমরা নিজেরাই তাঁবু টানিয়েছি। যদিও কাজটি খুবই কঠিন ছিল, তারপরও টানাতে পেরেছি।
ফ্ল্যাগ প্যারেড এর মাধ্যমে ক্যাম্পের উদ্বোধন হয়। এরপর ছিল লিডারশিপ এর ওপর একটি ক্লাস। সে ক্লাসে জানতে পারলাম একজন লিডার কীভাবে কাজ করে; তার কী কী গুণ থাকতে হয় ইত্যাদি। পরের ক্লাসে স্কাউটিংয়ের ইতিহাস সম্পর্কে জানতে পারি।
২য় দিন
সকালে ঘুম থেকে ওঠার টাইম ছিল ৫-৩০ এ। উঠে দেখি চারপাশে ঘুটঘুটে অন্ধকার। এরূপ অন্ধকারেই আমরা শুরু করি BPPT। এটি হলো স্কাউটের প্রতিষ্ঠাতা লর্ড ব্যাডেন পাওয়েল বা BP প্রবর্তিত বিশেষ কিছু শরীরচর্চা। আমরা সকলে একসাথে ইউনিট লিডার এর নেতৃত্বে BPPT করি। BPPT শেষে খুবই সতেজ অনুভব করছিলাম। এরপর শুরু হয় উপদলভিত্তিক পরিদর্শন। এটি মূলত একটি প্রতিযোগিতা, যার মাধ্যমে বোঝা যায় কোন্ উপদলের দক্ষতা কেমন। একজন পরিদর্শক প্রতিটি তাঁবুতে গিয়ে উপদল এবং তাঁবু এলাকা পরিদর্শন করেন। যে উপদল সবচেয়ে বেশি নম্বর পাবে, সে দল গৌরব পতাকা পাবে। সেদিন আমার দল প্রথম হয়, এবং তাতে আমরাই পাই ‘গৌরব পতাকা’। সে পতাকা পেয়ে সত্যিই গৌরববোধ করছিলাম। এরপর আবার শুরু হয় ক্লাস। লাঞ্চের পর নানারকম গেরো বা Knot দেয়া শেখানো হয়। আমি যেসব গেরো শিখেছি তার মধ্যে কয়েকটির নাম হল কোভ হিচ, টিম্বার হিচ, বোলাইন, মারলাইন স্পাইক হিচ ইত্যাদি। এসব গেরো দিয়ে বিভিন্ন কাজ করা যায়। বোলাইন দিয়ে কোনো ডুবন্ত মানুষকে বাঁচানো যায়, আবার টিম্বার হিচ দিয়ে গাছের গুঁড়ি টানা যায়।
৩য় দিন
সেদিনও সকাল ৫-৩০ ঘুম থেকে উঠে BPPT করি। পরিদর্শনও হয়। কিন্তু সেদিন আমার দল তৃতীয় হয়। পরিদর্শনের পর দুপুর ২টা পর্যন্ত ট্রেনিং সেশন চলে। এরপর আমাদের মাঠে নিয়ে যাওয়া হয় এবং পাইওনিয়ার প্রজেক্ট ক্লাস শুরু হয়। স্কাউটিংয়ের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল পাইওনিয়ারিং। প্রতিটি স্কাউটকে পাইওনিয়ারিং এ পুরো দক্ষতা অর্জন করে পাইওনিয়ার হতে হয়। এতে বিভিন্ন সামগ্রী বা গ্যাজেট বানাতে শেখে স্কাউটরা। তাঁবু-বাস আরও আরামদায়ক করার জন্য বাঁশ দিয়ে বিভিন্ন আসবাবপত্র বানাতে হয়, যাদের আমরা গ্যাজেট বলে থাকি। আমি অনেক গ্যাজেট বানানো শিখেছি। কয়েকটি গ্যাজেটের নাম হলো- পোল মাঙ্কি ব্রিজ, যা দিয়ে ছোট খাল পার হওয়া যায়; হ্যাঙ্গার, যাতে কাপড় নাড়া যায়; হোলডার, যাতে প্লেট গ্লাস রাখা যায় ইত্যাদি।
সেদিন ব্যাডেন পাওয়েল এর জন্মদিনও ছিল। তাই সব সেশন শেষ করে আমরা ছোট একটা কেক এনে BP এর জন্মদিন পালন করি। আমরা খুব মজা করি। মনে হচ্ছিল আমাদের সবার জন্মদিন।
৪র্থ দিন
এদিন আমরা একটু দেরি করে অর্থাৎ ৬-৩০ এ ঘুম থেকে উঠি। কারণ সেদিন BPPT ছিল না। সেদিন ছিল ট্রেজার হান্ট সেশন। ট্রেজার হান্ট হলো নির্দেশিকা অনুসরণ করে কোনো কিছু খুঁজে বের করা। এর আগের দিনের সেশনে আমাদের শেখানো হয়েছিল, কীভাবে ট্রেজার হান্ট করতে হয়। নিয়মানুযায়ী আমরা ট্রেজার হান্ট করি। শেষ পর্যন্ত আমর টিম প্রথম হলো। কারণ সব নিয়ম অনুসরণ করে সবার আগে লক্ষ্য অর্জন করি আমরা। ট্রেজার হান্ট এর পর আমরা প্রেসিডেন্ট স্কাউট এওয়ার্ড পরীক্ষার ফর্ম পূরণ করি। তারপর এ ক’দিনের সেশনগুলোতে যা শিখেছি সেসব বিষয় নিয়ে পরীক্ষা হয়। পরীক্ষাটি কোনো ক্লাসরুমে হয়নি, বরং হয়েছে জঙ্গলের ভেতর। একেক জায়গায় একেক জনকে বসানো হয়। জঙ্গলের মধ্যে বসে পরীক্ষা দিতে অন্যরকম লাগছিল।
এরপর ফিরে আসার পালা। আমরা সকলে ব্যাগ গুছিয়ে নিই এবং বাসে করে ঢাকায় ফিরে আসি। এই ক্যাম্পটি আমার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ ছিল। কেননা এখানে আমি শিখতে পেরেছি স্কাউটিংয়ের অনেক জরুরি বিষয়।
প্রিয় পাঠক দোয়া করবেন, আমি যেন এই জ্ঞান কাজে লাগিয়ে প্রেসিডেন্ট স্কাউট এওয়ার্ড পেতে পারি এবং মানুষের সেবায় স্কাউটিংয়ের কলাকৌশল কাজে লাগিয়ে জীবনকে আরও সার্থক করতে পারি।


আরো সংবাদ

শিশু ক্যাম্পাস

বিশেষ সংখ্যা

img img img

আর্কাইভ