বিশেষ খবর

উচ্চশিক্ষায় বিষয় নির্বাচন

ক্যাম্পাস ডেস্ক ক্যারিয়ার গাইড
img

সায়েন্স নিয়ে পড়ার আগে দেখে নিতে হবে ক’টি বিষয়। সায়েন্সের প্রায় সব শাখায় অঙ্ক রয়েছে। তাই অঙ্কে ভয় পেলে চলবে না। নিজের চেষ্টায় অঙ্কের সমাধান করার প্রবণতা থাকতে হবে। ফিজিক্স তো বটেই, অনেক সময় কেমিস্ট্রিতেও রয়েছে ক্যালকুলাসের ব্যবহার। অনেকে মনে করেন, বায়োসায়েন্স নিলে অঙ্ক করতে হবে না। প্রাথমিক স্তরে হয়ত কাজে লাগবে না, তবে ভবিষ্যতে গবেষণায় অঙ্ক কাজে লাগতে পারে। বিজ্ঞান আমাদের যুক্তি দিয়ে বিচার করতে শেখায়। উপপাদ্য থেকে শুরু করে কম্পিউটার প্রোগ্রামিং সব কিছুতেই রয়েছে এর উপস্থিতি। সুতরাং, সায়েন্স নিয়ে পড়তে হলে ভাল লজিক্যাল এ্যাবিলিটি থাকা জরুরি।
আর্টসের আদোপান্ত
ক্যারিয়ার গড়ার ক্ষেত্রে আর্টস বা হিউম্যানিটিজ একেবারে ফেলনা নয়। বরং কয়েকটি বিষয় নিয়ে পড়ালেখা করলে ভাল রোজগার এবং সামাজিক সম্মান দুটোই রয়েছে। আর্টসে বিষয়- বৈচিত্র্য ব্যাপক এবং এর পরিধিও অনেক। আর্টসের ছাত্র-ছাত্রীদের স্মৃতিশক্তি ভাল হওয়া জরুরি। এর সঙ্গে দরকার মৌলিক বিষয়ে লিখতে পারার ক্ষমতা। কোনো বিষয় সম্পর্কে নিজের মতামত দেয়ার পাশাপাশি বিভিন্ন মতবাদের মধ্যে সিন্থেসিস করার ক্ষমতাও থাকা চাই। এছাড়াও থাকা চাই ভাষার ওপর দখলদারিত্ব। ইংরেজী এবং নিজের মাতৃভাষা, দুটি ভাষাতেই দক্ষতা প্রয়োজন। আর্টসের এমন কিছু বিষয় আছে, যেগুলো কেবল মুখস্থ করলেই চলে না। আর্টসের ছাত্রছাত্রীদের সাফল্যের নেপথ্যে আন্ডারস্ট্যান্ডিং ক্যাপাবিলিটির ভূমিকা আছে। পরীক্ষার খাতায় হোক বা কর্মক্ষেত্রে, নিজের বক্তব্য সঠিকভাবে ব্যক্ত করার গুণ আর্টসের একজন শিক্ষার্থীর থাকা উচিত। সংশ্লিষ্ট বিষয়সমূহের প্রশ্নাবলীর উত্তরের মান ভাল করার জন্য আর্টসের শিক্ষার্থীদের বেশি পরিশ্রম করতে হয়। প্রয়োজনবোধে একাধিক রেফারেন্স বইয়ের সাহায্য নিয়ে উত্তর তৈরির কাজ করতে হবে। আর্টস বা হিউম্যানিটিজে পড়তে গেলে শিক্ষার্থীদের ধৈর্য থাকাটা ভীষণ জরুরি।
কথকতা কমার্সের
নম্বরই কমার্সের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর। শেয়ার মার্কেটের সূচক, বিভিন্ন কোম্পানির ব্যালান্সশিট সবই সংখ্যার খেলা। কমার্স বিষয়টি ডেবিট-ক্রেডিটের নিয়মে বাধা। এ ক্ষেত্রে যে যত বেশি যুক্তি দিয়ে ভাবতে পারবে, তার সাফল্যের সম্ভাবনা তত বেশি। কমার্সের শিক্ষার্থীরা যেসব পেশায় যাবে, সেখানে একই কাজ বার বার করতে হতে পারে। প্রতিদিনই জার্নাল এন্ট্রি করা, ডেবিট-ক্রেডিট মেলানো প্রভৃতি করতে গিয়ে কাজ একঘেয়েমি আসতে পারে। তাই এ বিষয়ে আগ্রহী শিক্ষার্থীদের হতে হবে ধৈর্যশীল।
ব্যতিক্রমী বিষয়ে ক্যারিয়ার
যুগোপযোগী বিষয়ে পড়াশোনা করলে কর্মজীবনে সফল হওয়া সহজ হয়। সদ্য এইচএসসি উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীরা স্বল্পসময়ে স্বল্পখরচে সময়োপযোগী বিভিন্ন কোর্স করতে পারেন। কোর্স সম্পন্নকারীদের দেশে ও বিদেশে রয়েছে ব্যাপক চাহিদা। বর্তমান সময়ে গতানুগতিক পেশার বলয় ভেঙ্গে বেরিয়ে আসছে তারুণ্য। পেশা হিসেবে তারা বেছে নিচ্ছে যুগোপযোগী ও সৃজনশীল সব কাজ।


আরো সংবাদ

শিশু ক্যাম্পাস

বিশেষ সংখ্যা

img img img

আর্কাইভ